Chorabali Logo

গর্ভাবস্থায় কি খেলে বাচ্চা ফর্সা হয়

অনাগত সন্তানের গায়ের রং যেন ফর্সা হয় এটি সব বাবা মায়েরাই চেয়ে থাকেন। গর্ভাবস্থায় কি খেলে বাচ্চা ফর্সা হয়? এই প্রশ্ন অনেক গর্ভবতী মায়েরা করে থাকেন। ‌এবং গর্ভাবস্থায় মায়েরা বিভিন্ন রকম খাবার খেয়ে থাকেন শিশুর গায়ের রং ফর্সা করার জন্য।

 কিন্তু শিশুর গায়ের রং কেমন হবে তার প্রায় ৯০ ভাগ নির্ভর করে বাবা-মায়ের জেনেটিক ফ্যাক্টরের উপর। কিন্তু কিছু খাদ্য রয়েছে যেগুলো খেলে বাচ্চার গায়ের রং উজ্জ্বল হয়। পরিবারের বয়োবৃদ্ধ সদস্যরা গর্ভবতী মাকে কিছু খাবারের তালিকা দিয়ে থাকেন তাদের অতীত অভিজ্ঞতা থেকে। 

তবে তাদের প্রদত্ত খাদ্য তালিকায় যেসব খাবারের নাম থাকে সেগুলো বাচ্চার গায়ের রং ফর্সা করার জন্য ভূমিকা রাখতে পারে। গর্ভাবস্থায় কি খেলে বাচ্চা ফর্সা হয় এই প্রসঙ্গে আমরা নিচে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব।

চলুন এক নজরে দেখে নেই কোন খাবারগুলো খেলে বাচ্চার গায়ের রং ফর্সা হতে পারে-

  • চেরি জাতীয় ফল,
  • টমেটো,
  • দুধ,
  • ডিম,
  • কমলা,
  • নারিকেল।

আরও>>

চেরি জাতীয় ফল

আমরা বাজারে যেসব চেরি জাতীয় ফল পাই সেগুলোতে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। এটি গর্ভস্থ শিশুর গায়ের রং ফর্সা করতে সাহায্য করে। শিশুর গায়ের রং ফর্সা করার জন্য আরও খেতে পারেন স্ট্রবেরি, ব্লুবেরি ইত্যাদি।

টমেটো

টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে লাইকোপেন থাকে। এবং সূর্যের আলো থেকে আমরা প্রচুর পরিমাণে আলট্রা ভায়োলেট রে পেয়ে থাকি। প্রতিদিন টমেটো খেলে সূর্যের অতি বেগুনে রশ্মির ফলে ত্বকের পোড়া দাগ আস্তে আস্তে দূর হয়।

দুধ

গর্ভবতী মহিলা যদি প্রতিদিন পরিমিত পরিমাণে দুধ পান করেন তাহলে শিশু শরীরের গঠন ভালো হয় এবং শিশুর গায়ের রং ফর্সা হয়।

ডিম

সম্পূর্ণ গর্ভাবস্থা জুড়ে প্রতিদিন একটি করে ডিম খাওয়া খুবই জরুরী। কিন্তু বাচ্চার গায়ের রং ফর্সা হওয়ার জন্য দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টারে ডিম খাওয়া উচিত।

কমলা

গর্ভাবস্থায় ভিটামিন সি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি গর্ভস্থ শিশুর এবং গর্ভবতী মা উভয় ত্বক মসৃণ রাখে এবং ত্বকের রং ফর্সা করতে সাহায্য করে।

নারিকেল 

নারিকেলের সাদা শাঁস গর্ভস্থ শিশুর গায়ের রং ফর্সা করে। তবে এটি সম্পূর্ণ একটি প্রচলিত ধারণা। গর্ভাবস্থায় ডাব খাওয়া ভালো কিন্তু সেটা পরিমিত পরিমাণে।

গর্ভাবস্থায় জাফরান খেলে কি বাচ্চা ফর্সা হয়

অনেক মুরুব্বিরা বলে থাকেন গর্ভাবস্থায় জাফরান খেলে বাচ্চা ফর্সা হয়। তবে জাফরান দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া ভালো। কারণ জাফরানের নিজস্ব গুণ এবং দুধের গুণাগুণ একসাথে মিশ্রিত হয়ে একটি ভালো উপকারিতা প্রদান করে। কিন্তু জাফরান খেলে বাচ্চা ফর্সা হবে কিনা এর কোন বিজ্ঞানসম্মত প্রমাণ নেই।

গর্ভাবস্থায় বাচ্চার ত্বক ফর্সা করার উপায়

গর্ভাবস্থায় কিছু খাবার খেলে শিশুর গায়ের রং ফর্সা হয়। ইতোমধ্যে আমরা সেই খাবারগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি। তাছাড়া বাচ্চার গায়ের রং কেমন হবে তা পুরোপুরি নির্ভর করে বাবা মায়ের জেনেটিক ফ্যাক্টর এর উপর। তাছাড়া পরিবেশগত এবং আবহাওয়া গত কারণও কিছুটা দায়ী। বাচ্চার গায়ের রং ফর্সা এবং মসৃণ করার জন্য সুষম খবর গ্রহণ করুন।

গর্ভাবস্থায় শিশুর ত্বক সাদা করার জন্য কোন ফল খাওয়া উচিত

গর্ভাবস্থায় শিশু ত্বক সাদা করার জন্য নাশপাতি, আপেল, কমলা, ব্লুবেরি, স্ট্রবেরি প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় রাখতে পারেন। তবে কোন ফলেই অতিরিক্ত খাবার চেষ্টা করবেন না। এতে করে গর্ভাবস্থায় গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বেড়ে যেতে পারে। শিশুর গায়ের রং ভালো করার জন্য প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় বিভিন্ন ফ্রুট সালাদ অথবা সবজি দিয়ে সালাদ তৈরি করে খেতে পারেন।

শেষ কথা 

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করেছি গর্ভাবস্থায় কি খেলে বাচ্চা ফর্সা হয়? গর্ভাবস্থায় কিছু খেলে শিশুর গায়ের রং ফর্সা হতে হবে অথবা শিশু দেখতে সুন্দর হবে এরকম কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে একটি সুস্থ সবল শিশু জন্ম দেওয়ার জন্য প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় সুষম খাবার রাখা একান্ত জরুরি।

বহুল জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

১) বড় হওয়ার সাথে সাথে বাচ্চাদের চেহারা কি পরিবর্তন হয়?

উত্তর: বড় হওয়ার সাথে সাথে শিশুর চেহারা অবশ্যই পরিবর্তন হয়।

২) বাচ্চার রং কি হবে?

উত্তর: বাচ্চার রং নির্ভর করে তার জৈবিক পিতা-মাতার জেনেটিক বৈশিষ্ট্যের উপর। বাবা মায়ের গায়ের রং কেমন থাকে শিশুর গায়ের রং কেমন হওয়ার পসিবিলিটি বেশি থাকে।

৩) গায়ের রং কি মা নাকি বাবার কাছ থেকে উত্তরাধিকারসূত্রে পাওয়া যায়?

উত্তর: শিশুর গায়ের রং মা এবং বাবার জেনেটিক বৈশিষ্ট্যের উপর নির্ভর করবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top