Chorabali Logo

জমি খারিজ করার পদ্ধতি

বর্তমানে অনলাইনের মাধ্যমে জমির খতিয়ান, ভূমি সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম এবং খাজনা পরিশোধ করার মতো বিষয়গুলিও ঘরে বসে করা সম্ভব। https://land.gov.bd এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ঘরে বসে জমির যাবতীয় তথ্য জানা যায় এবং জমি খারিজ করা যায়। বর্তমানে জমি খারিজ করার পদ্ধতি খুবই সহজ।

 

এক্ষেত্রে আবেদনকারীর কিছু গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট পেশ করতে হবে। সেগুলো হল: ছবি, জমি ক্রয় করার দলিল, ক্রয় কৃত জমির  সর্বশেষ খতিয়ান, আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র এবং স্বাক্ষরের প্রয়োজন হবে। অনলাইনে জমি খারিজ করার পদ্ধতি একই ধরনের।

 

এক্ষেত্রে উপরিউক্ত কাগজপত্র গুলি স্ক্যান করে ই নামজারি এর জন্য আবেদন করতে হবে। এবং উপরোক্ত ওয়েবসাইটে এই আবেদনপত্রটি জমা দিয়ে JPG, PDF আকারে সংরক্ষণ করতে হবে। চলুন জেনে নেই জমি খারিজ করার পদ্ধতি গুলো কি কি:

 

জমি খারিজ করতে কি কি কাগজ লাগে

জমি খারিজ বলতে কোন জমি উত্তরাধিকার সূত্রে ক্রয় সূত্রে অথবা দান সূত্রে নিজের নামে রেকর্ড করে নেওয়া কে বোঝায়। https://land.gov.bd/ লিংক এর মাধ্যমে সরাসরি ভূমি মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারবেন। 

 

এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যখন তখন ঘরে বসে জমির নামজারি করতে পারবেন। এই ওয়েবসাইটে জমির নাম জারি করার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রয়োজন হবে। সেগুলো হলো:

 

  • জমির দলিল,

 

  • আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র,

 

  • আবেদনকারীর স্বাক্ষর,

 

  • জমির ওয়ারিশ এর সনদপত্র,

 

  • কর পরিশোধের প্রমাণ পত্র,

 

  • আবেদনকারীর বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা এবং জন্মতারিখ,

 

  • ক্রয় কৃত জমির সর্বশেষ খতিয়ান,

 

  • এবং আবেদন ফরম।

 

অনলাইনে জমি খারিজ করার পদ্ধতি

অনলাইনে জমি খারিজ করার পদ্ধতি এখন বেশ সহজ। চলুন দেখে নেই জমি খারিজ করার পদ্ধতি গুলো কি কি?

 

  1. https://mutation.land.gov.bd/ লিংকে প্রবেশ করে সাইন আপ করুন।

 

  1. এখানে বিভিন্ন অপশন আসবে। যেখান থেকে “নামজারি আবেদন” লেখাটায় ক্লিক করুন।

 

  1. পরবর্তী ধাপে যেসব তথ্য জানতে চাওয়া হবে তা সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে। এক্ষেত্রে জমির তফসিল এর তথ্য ও পূরণ করা লাগবে।

 

  1. উপরে উক্ত কাগজপত্র গুলো পিডিএফ আকারে আপলোড করতে হবে। তবে মনে রাখবেন ফাইলগুলোর সাইজ ২৫ এমবি এর বেশি হওয়া যাবে না।

 

  1. ফাইলের সাইজ অতিরিক্ত বড় হলে File Compress Tool ব্যবহার করতে পারবেন।

 

  1. ফাইল আপলোড করার পর কোন ক্যাটাগরিতে ফাইলকে আপলোড করছেন তা সিলেক্ট করে দিবেন।

 

  1. সর্বশেষ পর্যায়ে আবেদন ফি জমা দিতে হবে। এক্ষেত্র খতিয়ান ফি ১০০ টাকা, জমির রেকর্ড ফি ১০০০ টাকা এবং জমি খারিজ করার জন্য আবেদন ফি ৭০ টাকা অর্থাৎ মোট ১১৭০ টাকা জমা দিতে হবে।

 

জমি খারিজ করতে কতদিন সময় লাগে

ভূমির নামজারি প্রক্রিয়া অনলাইনে মাধ্যমে সম্পাদন করার জন্য ২৮ কার্যদিবস সময় লেগে থাকে। তবে যদি টেকনিক্যাল প্রবলেম থেকে থাকে সময় আরো কিছুদিন বেশি লাগতে পারে ‌ তবে জমি খারিজ করার জন্য আবেদন করার সময় জমিটির ডিক্রি, নিলাম, ওয়ারিশ হেবা ইত্যাদি উল্লেখ করতে হবে। এবং আপনি কোন সূত্রের মাধ্যমে জমিটি পেয়েছেন তা অবশ্যই এখানে দেখাতে হবে।

 

শেষ কথা

জমি খারিজ করার পদ্ধতি এখন আগের থেকে বেশ সহজতর হয়ে গেছে, অনলাইনের কল্যানে। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা জমি খারিজ করার পদ্ধতি, জমি খারিজ করার জন্য যে সব গুরুত্বপূর্ণ কাগজ লাগে এবং জমি খারিজ করতে কতদিন সময় লাগে তা বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

 

যারা জমি খারিজ বিষয়ক তথ্য জানতে চাচ্ছিলেন এই আর্টিকেলটি তাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে আশা করি।

 

বহুল জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

১)ভূমি অফিস হতে কোন জমির নামজারি করতে সরকারি ফি কত?

উত্তর: এক্ষেত্রে আবেদনের জন্য কোর্ট ফি প্রদান করতে হয় ২০ টাকা। রেকর্ড সংশোধনের জন্য এক হাজার টাকা এবং নোটিশ জারি ফি ৫০ টাকা প্রদান করতে হয়।

 

২)হেবা দলিল কি নামজারি করা যায়?

উত্তর: হেবা দলিল নাম জারি করার জন্য স্থানীয়ভাবে তদন্ত, সাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদ এর মাধ্যমে নামজারি করা যায়।

 

৩)দানপত্র দলিল রেজিস্ট্রি খরচ কত?

উত্তর: জমির মোট মূল্যের ১ পার্সেন্ট।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top