Chorabali Logo

বিদেশি অনুদান কিভাবে পাবো

বিদেশি অনুদান কিভাবে পাব এটি সম্পর্কে অনেক বাংলাদেশী বিস্তারিত ভাবে জানতে চান। তবে বিদেশি অনুদানের জন্য আবেদন করার পূর্বে অবশ্যই একটি ন্যায় সঙ্গত কারণ রাখার চেষ্টা করবেন। কোনভাবেই ব্যক্তিগত কোনো কারণে বিদেশি অনুদান পাওয়ার চেষ্টা করা ভুল। বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য সর্বপ্রথম রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। 

 

চেষ্টা করবেন রেজিস্ট্রেশন ফর্মে সকল তথ্য যেন সঠিক হয়। বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য আপনাকে তার উপযুক্ত হতে হবে। অনেকের চ্যারিটি সংগঠনের জন্য বিদেশি অনুদান নিতে চান। তবে সেক্ষেত্রে নির্দিষ্ট একটি সংগঠনের সঙ্গে আপনাকে যুক্ত থাকতে হবে। মূলত বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য আপনাকে অনলাইনে মাধ্যমে আবেদন করে নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে সেটা জমা দিতে হবে।

 

কোন ডোনার যদি আপনাকে ডলার দিতে রাজি থাকেন তাহলে  সে আপনার একাউন্টে ডলার সেন্ড করবেন। আবেদনের মাধ্যমে বিদেশি অনুদান কিভাবে পাবো এখন আমরা তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব:

 

বিদেশি অনুদান কিভাবে পাবো 2023

বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য সাধারণত কয়েকটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করা যায়। ওয়েবসাইট গুলোর নাম হলো:

 

  • GoFoundMe
  • Global Giving
  • Charity Navigator
  • Air Funding.

 

বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য উপরে আমরা যে সাইটগুলোর নাম দিয়েছি সেগুলোর যেকোনো একটিতে সাইন আপ করতে হবে। এখানে দেশের নাম, জিপ কোড এবং অনুদানের ধরন উল্লেখ করতে হবে।

 

এই আবেদন ফরম এবং আপনি কি ধরনের লোন নিতে চান তা আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন। শেয়ারের পরিমাণ যত বেশি হবে লোন পাওয়ার রাস্তা ততটা সহজ হয়ে যাবে।

 

বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সমূহ

বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য আবেদন ফরম পূরণ করতে হয়। এক্ষেত্রে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজের প্রয়োজন রয়েছে। সেগুলো হলো:

 

  • যে সংস্থার জন্য অনুদান চাচ্ছেন সেই প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন পত্র।

 

  • সংগঠনের নাম, ইমেইল নাম্বার এবং লোকেশন।

 

  • আপনি সংগঠনের কোন পদে নিয়োজিত রয়েছেন তার প্রমাণ পত্র।

 

  • সংস্থার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর যাবতীয় তথ্যাবলী।

 

  • সংস্থাটি কি উদ্দেশ্যে স্থাপিত হয়েছে এবং এর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি তা তুলে ধরতে হবে।

 

  • বিগত তিন মাসের মধ্যে তোলা প্রতিষ্ঠানের একটি ছবি।

 

বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য আবেদন পত্রে কিছু কিছু কথা উল্লেখ করলে অনুদান পেতে সুবিধা হয়। সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো:

 

  1. আপনি অর্থের অভাবে কতটা খারাপ সময় কাটাচ্ছেন তা কোন পত্র তুলে ধরুন।

 

  1. যে ক্যাটাগরিতে আপনি অনুদান পেতে যাচ্ছেন সেই ক্যাটাগরিতে আপনার ভোটার আইডি কার্ড এবং ছবি আপলোড করুন।

 

  1. আবেদনপত্র পূরণ করার সময় চ্যারিটি ক্যাটাগরি অনুসরণ করুন।

 

  1. ক্যাটাগরির বাইরে গিয়ে আবেদনপত্র পূরণ করার চেষ্টা করবেন না। এক্ষেত্রে আবেদন পত্র টি সম্পূর্ণভাবে বাতিল হতে পারে।

বিদেশি অনুদান কত টাকা দেয়

বিদেশি অনুদান থেকে কত টাকা পাবেন তা নির্ভর করে যে ব্যক্তির টাকা ডোনেট করছে তার উপর।

তবে এই অনুদানের পরিমাণ সাধারণত ৫০০ ডলার থেকে শুরু হয়। এবং প্রমাণের সত্যতার ভিত্তিতে ১ লক্ষ ডলার পর্যন্ত পেতে পারেন। এই অর্থ সাধারণত পেপাল অথবা ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে উত্তোলন করতে হয়।

শেষ কথা

অনেকেই ব্যক্তিগতভাবে বিদেশি অনুদান পাওয়ার জন্য অসৎ উপায় অবলম্বন করে থাকেন। যেটা পুরোপুরি দণ্ডনীয় অপরাধ। আপনার উদ্দেশ্য যদি সৎ হয়ে থাকে, তাহলে সতর্কতার সহিত আবেদনপত্র পূরণ করলে আপনি বিদেশি অনুদান পাবেন। আশা করি যারা জানতে চেয়েছিলেন বিদেশি অনুদান কিভাবে পাবো তারা তাদের উত্তর পেয়েছেন।

 

বহুল জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

১)বৈদেশিক অনুদান কি?

উত্তর: বাইরের দেশ থেকে প্রাপ্ত অর্থকেই বৈদেশিক অনুদান বলে।

 

২)বৈদেশিক অনুদান বিধি অধ্যাদেশ কত সালে প্রণীত হয়?

উত্তর: ১৯৭৮ এবং ১৯৮২ সালে।

 

৩)কোন দেশ সবচেয়ে বেশি অনুদান দেয়?

উত্তর: অন্যান্য দেশের তুলনায় ইন্দোনেশিয়া সবথেকে বেশি অনুদান দিয়ে থাকে।

 

৪)বৈদেশিক সাহায্য কাকে বলে?

উত্তর: যখন কোন ব্যক্তি তার দেশ অথবা তার কোন সংস্থার জন্য আন্তর্জাতিক কোন প্রতিষ্ঠান কর্তৃক আর্থিক সুবিধা পেয়ে থাকে তখন তাকে বৈদেশিক সাহায্য বলে।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top