Chorabali Logo

প্রাথমিক শিক্ষকদের মাতৃত্বকালীন ছুটির আবেদন

মহিলারা অফিস থেকে মাতৃত্বকালীন ছুটি জীবনে দুইবার পেয়ে থাকেন। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাধারণত মহিলাদের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিয়োগ প্রদান করা হয়। তাই এক্ষেত্রে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকাদের ছয় মাসের মাতৃত্বকালীন ছুটি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। শিক্ষিকাদের মাতৃত্বকালীন ছুটির জন্য আবেদন করতে হয় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে। 

আমরা আজকের আর্টিকেলে আপনাদের নমুনার মাধ্যমে দেখাবো কিভাবে প্রাথমিক শিক্ষকদের মাতৃত্বকালীন ছুটির আবেদন লিখতে হয়। আবেদন নমুনা কপি অনুসরণ করলে আপনারা খুব সহজে মাতৃত্বকালীন ছুটির জন্য আবেদন লিখতে পারবেন। মাতৃত্বকালীন ছুটির জন্য আবেদন লেখার সময় আপনার নাম, বিদ্যালয়ের নাম, সন্তান জন্মদানের সম্ভাব্য তারিখ ইত্যাদি উল্লেখ করতে হবে। চলুন দেখে নিই কিভাবে প্রাথমিক শিক্ষকদের মাতৃত্বকালীন ছুটির আবেদন লিখতে হয়। 

ছুটির আবেদন অনেক ভাবে করা যায়। অনেকে হাতে লিখে আবেদন করে আবার অনেকে কম্পিউটার টাইপ করে আবেদন করে। যে কোন ভাবেই আবেদন করলে আপনার আবেদন সফল হবে। তবে লক্ষ রাখবেন কম্পিউটার টাইপ করে আবেদন করলে নিচে আপনার স্বাক্ষর দিতে হবে।

মাতৃত্বকালীন ছুটির দরখাস্ত

বরাবর,
উপজেলা শিক্ষা অফিসার,
রুপসা, খুলনা।
মাধ্যম: যথাযথ উপজেলা শিক্ষা অফিসার কর্তৃপক্ষ।
বিষয়: ১ম/ ২য় ছুটির জন্য আবেদন।

জনাব, 

যথাবিহিত সম্মান প্রদর্শক আপনার কাছে আমার বিনীত নিবেদন এই যে, আমি ………. উপজেলার ……………… বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষিকা। আমি এই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকায় হিসেবে গত তিন বছর ধরে সম্মানের সহিত শিক্ষকতা করছি।

বর্তমানে মাতৃত্ব জনিত কারণে আমি আপনার কাছে ছয় মাসের ছুটির জন্য আবেদন করছি। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ……….. তারিখ হতে ………. তারিখ পর্যন্ত আমার পক্ষে বিদ্যালয়ে উপস্থিত থাকা সম্ভব হবে না। অতএব আমাকে ৬ মাস অর্থাৎ ১৮০ দিনের ছুটি মঞ্জুর করে বাধিত করতে আপনার জন্য মর্জি হয়। নিম্মে আমি আমার ডাক্তারি প্রেস্ক্রিপশন এবং কিছু রিপোর্ট প্রমাণের জন্য পেশ করলাম।

অতএব মহোদয়ের সমীপে আমার আকুল আবেদন, আমাকে উক্ত ছুটি প্রদানে আপনার যেন মর্জি হয়।

তারিখ: ……… 

সংযুক্ত: ডাক্তারি প্রেসক্রিপশন এবং সার্টিফিকেট।

বিনীত নিবেদক,
নাম: …………
বিদ্যালয় এর নাম: …………..
রুপসা, খুলনা।

মাতৃত্বকালীন ছুটির নিয়ম এবং মাতৃত্বকালীন ছুটি কবে থেকে কার্যকর হবে ?

মাতৃত্বকালীন ছুটির জন্য আবেদন করার সময় কিছু বিষয়ে আপনার খেয়াল রাখতে হবে। নিম্নে সেগুলো সম্পর্কে আলোচনা করা হলো:

  • সন্তান গর্ভে থাকাকালীন যেকোনো সময়ে আপনি আবেদন করতে পারবেন। তবে ঠিক ছয় মাস পূর্ণ হওয়ার সাথে সাথে আপনাকে কাজে যোগ দিতে হবে।
  • সন্তান জন্মদানের পর এই ছুটির জন্য আবেদন করা যায় না। সন্তান গর্ভে থাকতে আবেদন করলে জন্মদানের পরও আপনি পাঁচ থেকে ছয় মাসের ছুটি পাবেন মেয়াদ অনুযায়ী।
  • ছুটি শুরু হওয়ার সর্বশেষ তারিখ হবে সন্তান জন্মদানের তারিখ।
  • আবেদন করার সময় অবশ্যই ডাক্তারি সার্টিফিকেট প্রদান করতে হবে।
  • যেকোনো মা চাইলে ৬ মাসের কম ছুটি নিতে পারেন কিন্তু ৬ মাস থেকে বেশি ছুটি নেওয়া সম্ভব নয়।
  • ডেলিভারি ডেট এর তারিখ ধরে ছয় মাসের ছুটি দেওয়ার বিধান রয়েছে।
  • মাতৃত্বকালীন ছুটির সময় বেতন এবং ভাতা পূর্বের অনুযায়ী প্রদান করা হবে। তবে এক্ষেত্রে কেউ যদি ছয় মাসের বেশি ছুটি কাটায় তবে তার বেতন দেওয়ার বিষয়টি কর্তৃপক্ষ নির্ধারণ করবেন।

শেষ কথা

অনেকেই বুঝতে পারেন না কিভাবে মাতৃত্বকালীন ছুটির জন্য আবেদন করতে হয়। এইজন্যই আজকের আর্টিকেলে আমরা প্রাথমিক শিক্ষকদের মাতৃত্বকালীন ছুটির আবেদন নমুনা সহকারে আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। যারা মাতৃত্বকালীন ছুটির জন্য আবেদন করতে চাচ্ছেন আশা করছি আমাদের আজকের আর্টিকেলটি তাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হবে।

বহুল জিজ্ঞাসিত প্রশ্নোত্তর

১) মাতৃত্বকালীন ছুটির আবেদন?

উত্তর: মাতৃত্বকালীন ছুটির আবেদন লেখার সময় সেখানে পেশার নাম, সন্তান জন্মদানের সম্ভাব্য তারিখ, এবং ডাক্তারি প্রেসক্রিপশন তুলে ধরতে হয়।

২) প্রসবপূর্ব অনুমতি পত্র কিভাবে লিখতে হয়?

উত্তর: প্রসব পূর্ব বউ অনুমতিপত্র লেখার সময় ডাক্তারি প্রেসক্রিপশন, ডাক্তারি অ্যাপয়েন্টমেন্ট এবং কাজে ফিরে আসার তারিখ উল্লেখ করতে হবে।

৩) প্রসবের পর মাতৃত্বকালীন ছুটি কিভাবে লিখতে হয়?

উত্তর: প্রসবের পর মাতৃত্বকালীন ছুটির জন্য আবেদন লেখার সময় সন্তান জন্মদানের তারিখ এবং শিশু যত্ন করতে আপনার তৈরি হওয়া অসুবিধাগুলো তুলে ধরতে হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top